টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনে এমপি প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার লিয়াকত আলী

সুমন ঘোষ : একাদশতম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমপি পদে অংশ নিতে যাচ্ছেন এসএ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দানবীর খ্যাত ইঞ্জিনিয়ার লিয়াকত আলী। ইঞ্জিনিয়ার লিয়াকত আলী টাঙ্গাইল জেলা পরিষদের সদস্য এবং কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি।

তিনি টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ইতিমধ্যে টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের বিভিন্ন এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণা ও ক্যাম্পেইন শুরু করছেন। আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে তিনি মনোনয়ন চাইবেন বলে জানান।

জানা যায়, মানব কল্যাণে দীর্ঘকাল থেকেই ইঞ্জিনিয়ার লিয়াকত আলী তার নিজ এলাকা তথা নির্বাচনী এলাকা কালিহাতীর সাধারণ মানুষের কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত রাখার চেষ্টা করেছেন। তিনি একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আদর্শ প্রচার ও দলকে সুসংগঠিত করতে নিরলস কাজ করে চলেছেন। জেলা, উপজেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে তার একটা ভাল গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। সাধারণ মানুষের কাছে অমায়িক ও সদালাপি ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত। নিজ এলাকায় বিভিন্ন ধর্মীয় ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানের পৃষ্টপোষকতা করছেন। এলাকার খোঁজখবর নেন সার্বক্ষণিক। বিশেষকরে শিক্ষা বিস্তারে তার অবদান অতুলনীয়। কারিগরি ও ব্যবসায়ীক প্রয়োজনে তিনি পৃথিবীর ১৫টি রাষ্ট্রে ভ্রমণ করেছেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর মুক্তির ছাত্র সংগ্রামে, ঊনসত্তুরের ছাত্র আন্দোলনে ও সত্তুরের নির্বাচনে আওয়ামীলীগের পক্ষে একজন নিবেদিত কর্মী হিসেবে কাজ করেন। মুক্তিযুদ্ধে স্থানীয়ভাবে ও খাবার ক্যাম্পে সহযোগিতা করেন।

শিক্ষাগত জীবনে লিয়াকত আলী ১৯৭৬ সালে দেউপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, ১৯৭৮ সালে সরকারি সা’দত কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারি কলেজ (বর্তমান বুটেক্স) থেকে ১৯৮৬ সালে ইঞ্জিনিয়ারিং (বিএসসি) পাশ করেন। ছাত্রজীবন থেকেই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাথে জড়িয়ে ছিলেন তিনি।

লেখাপড়া শেষ করার পরপরই তিনি পাবলিক সার্ভিস কমিশন কর্তৃক নির্বাচিত হয়ে এজিবিতে চাকুরী জীবন শুরু করেন। এজিবিতে আড়াই বছর চাকুরী পর তিনি বিটিএমসিতে ১ম শ্রেণির কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ পান। সাড়ে পাঁচ বছর পর বিটিএমসিতে ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব শেষে চাকুরীতে রিজাইন দিয়ে বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে জিএম হিসেবে যোগদান করেন। কিছুদিন পর স্বাতন্ত্র ব্যবসা শুরু করেন। তারই ধারাবাহিকতায় বর্তমানে দু’টি লিমিটেড কোম্পানীসহ চারটি প্রতিষ্ঠান নিয়ে এসএ গ্রুপ প্রতিষ্ঠিত।

২০০১ সাল থেকে তিনি বিভিন্ন সামাজিক কর্মকা-ে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। সেই থেকে অবিরাম নিজস্ব উদ্যোগে ও অর্থায়নে গরীব-দু:খীদের মেয়ে বিয়ে, চিকিৎসার্থে সহযোগিতা, গৃহ নির্মাণ, কাপড় বিতরণসহ বিভিন্ন কর্মকা-ে অংশগ্রহণ করে আসছেন। তিনি সাধারণ মানুষকে স্বাবলম্বি করে তুলতে ভ্যান, রিক্সা, বিধবাদের গাভী বিতরণ, এলাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও জরাজীর্ণ মসজিদ উন্নয়নকল্পে আর্থিক সহায়তা প্রদান করে থাকেন। সাধারণ মানুষের দু:খে-কষ্টে এগিয়ে যাওয়া তার নেশায় পরিনত হয়ে যায়। একপর্যায়ে সাধারণ মানুষ তাকে দানবীর আখ্যায়িত করেন। সমাজ সেবায় বিশেষ অবদানের জন্য সম্প্রতি তিনি ‘বঙ্গবন্ধু স্মৃতি স্বর্ণপদক-২০১৭’ লাভ করেন।

নির্বাচনী সম্পর্কে কোন সংকেত পেয়েছেন কিনা জিজ্ঞাসা করলে লিয়াকত আলী বলেন, বর্তমানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন এখন আর মুখ দেখে কাউকে মনোনয়ন দেয়া হবে না। প্রার্থীত এলাকায় যার গণসংযোগ ও জন¯্রােত ভাল এবং ক্লিন ইমেজ রয়েছে তাদেরকে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন দেয়া হবে। আমি প্রধানমন্ত্রীর এ গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্যতে উদ্বুদ্ধ হয়ে চ্যালেঞ্জ নিয়ে মাঠে নেমেছি। আমি পরিপূর্ণ আশাবাদী। আওয়ামী লীগ আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি সুষ্ঠ নির্বাচনের মাধ্যমে বিজয় লাভ করে আওয়ামী লীগ তথা প্রধানমন্ত্রীকে নৌকার বিজয় উপকার দিতে পারবো ইনশাল্লাহ।



এই প্রতিবেদন টি 293 বার পঠিত.