রেহানের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেবেন তানজিন তিশা

সংগীত তারকা হাবিব ওয়াহিদ তার সাবেক স্ত্রী রেহানের বিচ্ছেদের পরই অভিনয়শিল্পী তানজিন তিশা’র সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়ান। আর ডিভোর্স হওয়ার পর থেকেই তানজিন তিশা বিভিন্ন সময়ে ম্যাসেজ ও নানারকম কটুক্তিমূলক বাক্য লিখে রেহানকে পাঠাতেন বলে অভিযোগ করে আসছিলেন রেহান।
আর রেহান গতকাল তিশার পাঠানো কিছু মেসেজের স্ক্রিনশট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফাঁস করছেন। এছাড়া স্ক্রিনশর্টে তিশার নাম্বারটি স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে। আর হাবিব ওয়াহিদের সাবেক স্ত্রী রেহানের ফেসবুক স্ট্যাটাস নিয়ে তানজিন তিশা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
আজ তিশার মন্তব্য জুড়ে দিয়ে একটি গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ হয় রেহানের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেবেন তানজিন তিশা। আর বিষয়টি তিশার দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনিকে বলেন, ‘রেহান যা যা বলছে প্রত্যেকটি মিথ্যা কথা। আমি চুপ ছিলাম। এখনও থাকব। আমার যদি মনে হয় আমি কিছু বলব, তবে আমি সংবাদ সম্মেলন করে বলব।’
রেহান অভিযোগ করে বলেছেন, হাবিবের সঙ্গে আপনার প্রেমের কারণেই নাকি তাদের সংসার ঘর ভেঙেছে। তিশা বলেন, ‘প্রেম-ভালোবাসা ছোট একটা বিষয়। কিন্তু আমাকে যে অপবাদ দেওয়া হচ্ছে সেগুলোর প্রত্যেকটি মিথ্যা। সে আমার যে স্ক্রিনশর্টগুলো প্রকাশ করেছে সেগুলো একটা বিষয়। স্ক্রিনশর্টটিতে আমার ব্যক্তিগত নাম্বারও রয়েছে। এরপর থেকেই আজেবাজে নাম্বার থেকে আমাকে ফোন করা হচ্ছে।’
‘তার থেকেও বড় কথা সে আমাকে গত কয়েকদিন আগে প্রচন্ড খারাপ ভাষায় গালাগালি করেছে। আমাকে যে ম্যাসেজগুলো পাঠিয়েছে আমি সেগুলোর স্ক্রিনশর্ট দিব না। তাহলে আমার আর তার মধ্যে পার্থক্য থাকল কোথায়? আর হয়ত অনেক দর্শক আমাকে ভুল ভাবছে। ভুল ভাবতে দিন। একজন শিল্পী হিসেবে আমার কিছু ভালো দর্শক আর কিছু খারাপ দর্শক থাকুক। কোন সমস্যা নেই।’
তানজিন তিশা বিষয়গুলোকে দেখছেন এভাবেই ‘যা হওয়ার তা হয়ে গেছে’। তার ভাষ্য, রেহান এখন যা করছে সেগুলো পাবলিসিটি করার জন্য, না হয় তার ক্ষতির জন্য। আর না হয় অন্য কোন উদ্দেশ্য আছে। এছাড়া অন্য কোন কারণও থাকতে পারে।
তিশা কথার এক পর্যায়ে বলেন, ‘সত্যটা এখন বলতে চাচ্ছি না।’ কেন বলতে চাচ্ছেন না? এমন প্রশ্নে তিশা বলেন, ‘সত্যটা বলতে চাচ্ছি না। কারণ বলার কিছুও নেই। শেষ এক বছরে যে ঘটনাগুলো ঘটেছে সে কাহিনীগুলোর পয়েন্ট ধরে ধরে বলতে হবে। কিন্তু আমার মনে হয় একজন শিল্পীর ব্যক্তিজীবনটা এভাবে শেয়ার করা আমি এবং আমার পরিবারে কেউ সাপোর্ট করে না। যদি দেখি বিষয়টা নোংরামোর দিকে যাচ্ছে তাহলে আমি আইনের দ্বারস্থ হব।’
এদিকে তিশা ইতিমধ্যেই একজন আইনজীবির সঙ্গে কথা বলেছেন। তিনি তাকে বলেছেন, কাজে মনোযোগী হওয়ার জন্য। ধৈর্য্য ধরার জন্য। কিন্তু নাম্বারসহ স্ক্রিনশর্টটি প্রকাশ হওয়ার পর যদি দেখেন বিষয়টা এমন পর্যায়ে চলে গিয়েছে লোকজন শুধু সে নাম্বারে ফোন দিয়ে বিরক্ত করছে, তাহলে তিশা মামলা করবেন। আর তিশা বলেন, ‘আমি আমার কাজে মনোযোগী হতে চাই। যতদিন পারব কাজ করব।’
তিশা ব্যক্তিগত কাজে দেশের বাইরে গিয়েছেন। ফিরেছেনও। আগামিকাল থেকে শুটিং শুরু করবেন। পুরোপুরি কাজে মনোযোগী হতে চান। ব্যক্তিগত বিষয়গুলো নিয়ে তিনি আর খবরের শিরোনাম হতে চান না। কথা প্রসঙ্গে বলেন, ‘আজ থেকে রেহান আমাকে ফোন করতে করতে মরে গেলেও আমি আর কোন রেসপন্স করব না।’
প্রসঙ্গত হাবিবের সঙ্গে রেহানের বিচ্ছেদের ঘোষণার কিছুদিন আগে থেকেই তার প্রেমিকার তালিকায় উঠে আসে তানজিন তিশার নাম। এ নিয়ে শুরু হয় হইচই। বিষয়টা এখানেই থেমে নেই, রেহান অভিযোগ করে বলেছেন, তিশা কোনো ধরনের বৈবাহিক সম্পর্ক ছাড়াই হাবিবের সঙ্গে একসঙ্গে বসবাস করছেন।



এই প্রতিবেদন টি 329 বার পঠিত.