দক্ষিণ এশিয়ায় ফিরেছে স্প্রিং অ্যাকসিলারেট

 

ডিএফআইডি, ইউএস এইড, নাইকি ফাউন্ডেশন এবং অস্ট্রেলিয়ান এইড-এর অর্থায়নে পরিচালিত বৈশ্বিক অ্যাকসিলারেটর স্প্রিং।

এই প্রতিষ্ঠান বর্তমানে আবেদন আহ্বান করছে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধিমুখী মাঝারি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছ থেকে; যারা ১০-১৯ বছর বয়সী কিশোরীদের নিয়ে কাজ করে থাকে। এমনকি বিশ্ব মানের বিশেষজ্ঞ সহায়তায় তাদের বাণিজ্যিক সামর্থ্য বিকাশের সম্ভবনাও রয়েছে। সাংবাদিক এবং সহায়ক প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে এই ঘোষণা দেয়া হয় ।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন স্প্রিংয়ের প্রধান নির্বাহী রামোনা লিবেরফ, বাংলাদেশে স্প্রিংয়ের কান্ট্রি ম্যানেজার মিনহাজ আনোয়ার, ইউএসএইড-এর উপ-পরিচালক, প্রোগ্রাম অফিসার জাস্টিন ডাট্টা এবং অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশনের ডেপুটি হেড অব মিশন স্যালি অ্যানভিনসেন্ট। চ্যাম্পিয়ন / ইনফ্লুয়েন্সাররা ছাড়াও এই সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের এন্টারপ্রেনরশিপ ইকোসিস্টেমের বিনিয়োগকারী ও সম্ভাবনাময় উদ্যোক্তা এবং গণমাধ্যম কর্মীরা।

পূর্ব আফ্রিকা আর দক্ষিণ এশিয়ায় উদ্ভাবনী পণ্য, সেবা এবং ব্যবসার রূপরেখা নিয়ে কাজ করে এমন অনেক প্রবৃদ্ধিমুখী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এদের মধ্যে কিশোরীরা উপকৃত হয় যাদের কর্মকা-ে, সেই সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজ করে থাকে স্প্রিং নামের এই বৈশ্বিক অ্যাকসিলারেটর। উল্লেখিত প্রতিষ্ঠানের উদ্ভাবনকে লক্ষ্যমুখী করার পাশাপাশি বাণিজ্যিক সম্ভাবনা ত্বরাণি¦ত করতে কাজ করে থাকেন স্প্রিংয়ের বিশ্বমানের বিশেষজ্ঞরা। বর্তমানে স্প্রিং দিচ্ছে ৯ মাসের বিশ্বমানের টেকনিক্যাল এক্সপার্টিজ, এর মধ্যে রয়েছে হিউম্যান-সেন্টার, ডিজাইন বুটক্যাম্প, ইনভেস্টমেন্ট রেডিনেস সাপোর্ট এবং মেন্টরশিপ। স্প্রিং এই সহায়তা প্রদান করবে তার পার্টনার এবং বিশেষজ্ঞদের মাধ্যমে। এর অন্যতম সানফ্রান্সিসকোর ফিউজ প্রজেক্ট।

সংবাদ সম্মেলনে স্প্রিংয়ের প্রধান নির্বাহী রামোনা লিবেরফ বলেনঃ বাংলাদেশ রয়েছে কিশোরীদের জন্য উন্নতমানের পণ্য ও সেবার দারুণ সম্ভাবনাময় বাজার। মোবাইল এবং ডিজিটাল সার্ভিসেস, নিরাপদ পরিবহন, পরিস্কার পানি, উন্নততর শিক্ষাসহ নানা ক্ষেত্রে আছে উল্লেখযোগ্য সুযোগ। এ বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া গেছে আমাদের মৌলিক গবেষণায়। বর্তমানে এশিয়ার ব্যবসা ক্ষেত্রে দক্ষিণ এশিয়ায় ১৮ ব্যাচের টির মধ্যে ২টি বাংলাদেশের। আমরা চাই এই সংখ্যা আরো বৃদ্ধি পাক। এজন্য চাইছি আসন্ন ব্যাচের নতুনদের আবেদন।



এই প্রতিবেদন টি 795 বার পঠিত.