ছাত্রলীগ নেতা দিয়াজ ইরফানকে শ্বাসরোধে হত্যা

ছাত্রলীগ নেতা দিয়াজ ইরফানকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে দ্বিতীয় ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সহসম্পাদক ছিলেন তিনি।

৩০ জুলাই রোববার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) হুমায়ুর কবির সরকার এ তথ্য জানান।

দিয়াজ হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হুমায়ুন বলেন, ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন এখনো হাতে পাইনি। তবে ময়না তদন্তকারী চিকিৎসক বলেছেন, দিয়াজের মৃত্যু শ্বাসরোধজনিত হত্যাকাণ্ড।

তবে দ্বিতীয় ময়নাতদন্ত কর্মকর্তা ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ প্রতিবেদনের বিষয়ে কিছু বলতে রাজি হননি।

গত বছরের ২০ নভেম্বর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি আবাসিক এলাকার ভাড়া বাসা থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় দিয়াজের লাশ উদ্ধার করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) নেতৃত্বে পুলিশ। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগ প্রথম তদন্ত রিপোর্টে দিয়াজ আত্মহত্যা করেছে এমন রিপোর্টের পর দিয়াজের পরিবার তা প্রত্যাখ্যান করে।

পরে ২৪ নভেম্বর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ নেতা টিপু ও সহকারী প্রক্টর আনোয়ার হোসেন চৌধুরীসহ ১০ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন দিয়াজের মা জাহেদা আমিন চৌধুরী।

মামলায় চট্টগ্রামের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শিবলু কুমার দে আগামী এক মাসের মধ্যে ঘটনাটি তদন্ত করে রিপোর্ট দেওয়ার জন্য সিআইডিকে নির্দেশ দেন।

পরে আদালতের নির্দেশে দ্বিতীয় ময়নাতদন্তের জন্য দিয়াজের মরদেহ কবর থেকে উত্তোলন করা হয়। দ্বিতীয় ময়নাতদেন্তের পরই ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জানালেন দিয়াজ আত্মহত্যা করেনি, তাকে হত্যা করা হয়েছে।



এই প্রতিবেদন টি 699 বার পঠিত.