আটকে গেছে স্মার্টকার্ড

আটকে গেছে স্মার্টকার্ড।  অসম্পূর্ণ ও ভুল তথ্যে ভরা স্মার্টকার্ড তড়িঘড়ি করে ছাপানো শুরু হলেও এখন তা আটকে গেছে। জাতীয় তথ্যভাণ্ডারে নাগরিকদের সংরক্ষিত তথ্য যাচাই-বাছাই ও সংশোধনের সুযোগ না দিয়ে কার্ড ছাপা শুরু করায় এমন পরিস্থিতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। কার্ড ছাপা বন্ধ রেখে আবারও তথ্য যাচাইয়ে মাঠে নামতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

২৭ ফেব্রুয়ারি সোমবার ‘অসম্পূর্ণ তথ্যে আটকে গেছে স্মার্টকার্ড ছাপা’ শিরোনামে দৈনিক সমকালে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এই তথ্য প্রকাশ করা হয়।

২০১১ সালের আগে যারা ছবিসহ ভোটার তালিকায় নাম উঠিয়েছেন তাদের তথ্য সংশোধনের সুযোগ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) কার্যালয়ের সচিব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ। তিনি আরও জানান, চলতি সপ্তাহে এ-সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হবে। ২০১১ সালের আগে যারা ভোটার হয়েছেন তারা নিজেদের দেওয়া তথ্য সংশোধনের সুযোগ পাবেন।

ইসি কার্যালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ঘোড়ার আগে গাড়ি জুড়ে দেওয়ার মতোই তথ্য সংশোধন না করে স্মার্টকার্ড ছাপার কাজ শুরু করা হয়েছিল। গত বছরের মার্চে কার্ড ছাপা শুরু করে ইসি। অক্টোবরে স্মার্টকার্ড বিতরণ আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন হয়। এ পর্যন্ত ছাপা হয়েছে মাত্র ৮০ লাখ কার্ড। বিতরণ হয়নি তার অর্ধেকও। এর মধ্যে বিতরণ করা কার্ডে ভুলও ধরা পড়ছে। রাজধানীর মিরপুর থানা এলাকাতেই ২৯ হাজারের মতো ভোটারের তথ্য অসম্পূর্ণ রয়ে গেছে। অন্যান্য এলাকাতেও প্রায় একই অবস্থা। দেশের ১০ কোটিরও বেশি ভোটারের মধ্যে নয় কোটি ভোটারের কার্ড ছাপানোর কথা ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে। এ সময়ের পরে প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে।

ইসি সচিব আবদুল্লাহ গতকাল বলেন, ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে ৯ কোটি ভোটারের জন্য স্মার্টকার্ড ছাপা সম্ভব হচ্ছে না। এখন পর্যন্ত কাজের অগ্রগতিতে মনে হচ্ছে আগামী বছরের এপ্রিল পর্যন্ত সময় লাগবে।



এই প্রতিবেদন টি 1138 বার পঠিত.