সাংস্কৃতিক আন্দোলন রুখবে জঙ্গিবাদ

সিলেটে বেঙ্গল উৎসবে তথ্যমন্ত্রী
সাংস্কৃতিক আন্দোলন রুখবে জঙ্গিবাদ

রাজনৈতিক আন্দোলনের পাশাপাশি জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সাংস্কৃতিক আন্দোলনের ওপর সবিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

শুক্রবার সন্ধ্যায় সিলেট নগরের মাছিমপুরে আবুল মাল আবদুল মুহিত ক্রীড়া চত্বরে বেঙ্গল ফাউন্ডেশন আয়োজিত দশদিনব্যাপী ‘মানবিক সাধনায় বেঙ্গল সাংস্কৃতিক উৎসবে’র  তৃতীয় সন্ধ্যার অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মন্ত্রী বলেন, ‘জঙ্গিবাদ নির্মূলে রাজনৈতিক আন্দোলনের পাশাপাশি সাংস্কৃতিক আন্দোলন গড়ে তোলার বিকল্প নেই।’

বায়ান্ন, একাত্তর, নব্বই এর সংগ্রাম আমাদের সাংস্কৃতিক বিজয়ের সাক্ষী হয়ে রয়েছে উল্লেখ করে মুক্তিযোদ্ধা ইনু বলেন, ‘রাজনৈতিক অপকৌশল হিসেবে মানুষের প্রবহমান সংস্কৃতির ধারাকে ব্যাহত করতে অতীতে বারবার ধর্মের অপব্যবহার হয়েছে। কিন্তু মননশীল সাংস্কৃতিক আন্দোলন বহুক্ষেত্রেই সে অপচেষ্টা নস্যাৎ করেছে ও আগ্রাসনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের শক্তি যুগিয়েছে।’

জ্ঞানতাপস আবদুর রাজ্জাক মঞ্চ থেকে এসময় বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের লিটুসহ আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। তথ্যমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব মুহাম্মদ আব্দুল্লাহিল কাইয়ূম শুক্র-শনিবার দু’দিনের সিলেট সফরে মন্ত্রীর সাথে রয়েছেন।

ভাষা’র মাসে মহান ভাষা শহীদদের গভীর শ্রদ্ধা এবং বেঙ্গল ফাউন্ডেশনকে এ আয়োজনের জন্য অভিনন্দন জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ধর্মের সাথে সংস্কৃতির কোনো বিরোধ নেই। বিশ্বব্যাপী হাজারো সংস্কৃতির মানুষ শান্তির সাথে যার যার ধর্ম পালন করছে। মানব ও প্রকৃতির জন্য প্রেম এবং চিত্তের সুবিকাশই ধর্মের সবচেয়ে বড় শিক্ষা। আর মানুষের এই চেতনা তার সংস্কৃতির মধ্যেই প্রকাশিত।’

গত বুধবার, ২২ ফেব্রুয়ারি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত উদ্বোধিত ৩ মে অবধি এ উৎসবে বাদ্যযন্ত্র প্রদর্শনী, কারুশিল্প, সাহিত্য সম্মেলন, গান, চলচ্চিত্র, লোকগান, নাটক, স্থাপত্য প্রদর্শনী ও আর্টক্যাম্পে দেশ-বিদেশের ছয় শতাধিক খ্যাতনামা ও উদীয়মান শিল্পীরা প্রতিদিন দুপুর থেকে মধ্যরাতব্যাপী অনুষ্ঠানে অংশ নিচ্ছেন। সংস্কৃতি চর্চায় উৎকর্ষের লক্ষ্যে এ উৎসব উৎসর্গ করা হয়েছে জ্ঞানতাপস আবদুর রাজ্জাকের উদ্দেশ্যে।



এই প্রতিবেদন টি 602 বার পঠিত.