ড.ইউনুসের ক্ষুদ্র ঋণ

শিরিণ ওসমান
ড.ইউনুসের ক্ষুদ্র ঋণ নিয়ে অনেক সমালোচনা বাংলাদেশে। আজ ভারত ক্ষুদ্র ঋন ব্যাংক চালু করছে।বাংলাদেশে ড. ইউনুসের এই ঋন ব্যবস্থা নিয়ে যত সমালোচনা কিংবা বলা যায় প্রপাগান্ডা হয়েছে তার কতটুকু সঠিক সেই বিষয়ে বলা আমার জন্য কঠিন। তবে আমার বাস্তব বেশ কিছু অভিজ্ঞতা আছে। আমি তার থেকে একটি উদাহরন দিব।
আমার বাসায় এক বছর ৫০/৫৫ বছর হবে একজন মহিলা কাজ করতো। তিনি বেশ বুদ্ধিমান এবং কর্মঠ। ভদ্রচিত চালচলন। তার দেশের বাডিতে টিনের চৌচালা ঘর আছে। পাশে রান্নাঘর আলাদা করে বানানো মাটির বেড়া এবং চিনের ছাদ। বাড়ির চারপাশে গাছপালা। এই ঘরটি গ্রামীন ব্যাংক করে দিয়েছে। সাথে ব্যবসার জন্য লোন দিয়েছে। হাঁস মুরগী পালন এবং গরু পালন। ডিম ও দুধ বেঁচে প্রতি সপ্তাহে সুদ পরিশোধ করতে হয়। ঋণ ছিল মহিলার নামে। তার মেয়েদের বিয়ে হয়ে গেছে। ছেলে ও স্বামী মিলে তাদের ব্যবসা ভালই চলছিল। কিন্তু এক পর্যায়ে তার স্বামী ঋনের একটা অংশ ভিন্নখাত ব্যায় করে। ঋন পরিশোধ করতে না পারায় তার স্বামী ও ছেলে পালিয়ে স্থান ত্যাগ করে। স্বামী সমুদ্র ট্রলারে মাছ ধরার কাজ করতো। সে সেখানে আবার কাজ নেয়। মহিলা বাড়ি তালা দিয়ে পাশের গ্রামে তার মেয়ের কাছে ঘরের চাবি দিয়ে ছেলে সহো ঢাকায় আসে এবং আমার বাসায় কাজ নেয়। ছেলে এক গার্মেন্টসে কাজ নেয়। এক বছর মা ছেলে ও স্বামী কাজ করে ঋণের টাকা জোগার করে।সবাই বাডি যায় এবং ঋণ পরিশোধ করে।
এই যে বাড়িঘর গাছপালা সহো তাদের নিরাপদ আশ্রয় নিজ জমিতে। সেই মূল টানে তারা আবার নতুন করে জীবন শুরু করবে। হয়তো আবারো ঋণ নিবে। সবচেয়ে আশ্চর্য হয়েছি মহিলা কিন্তু এই দু:সময়ে কখনো গ্রামীন ব্যাংকের ওপর দোষারোপ করেনি। সে তার ক্রান্তিকাল পার করতে পেরে সন্তুস্ট।
আমি ভেবে দেখলাম ক্ষুদ্র ঋণ তাদের থাকার সুব্যবস্থা করে দিয়েছে এবং সেই সাথে ব্যবসার ব্যবস্থা করে দিয়েছে। মহিলাদের নামে সুদ দেয় এ কারনে যে, মহিলারা গৃহত্যাগ করে না এবং পুরুষদের মতো অন্য স্থানে চলে গিয়ে আরেকটা বিয়ে করে বসে না। মহিলারা আর্থিকভাবে নিজের ওপর নির্ভরশীল হওয়ার সুযোগ পায়।যেহেতু ঋণ পরিশোধের তাগিদ আছে, তখোন পরিবারের সকলে দায়িত্বশীলতার সাথে তাদের কাজ করে যায়।মহিলারা সংসারে তার ভূমিকার মূল্য পায়। তাদের আর্থিক সামাজিক রুপান্তর ঘটে।
আমি নিজেও দেখেছি ছোট খাটো ঋণ বিপদে অনেক বড় ভূমিকা রাখে। দু:সময়ের দশ টাকা সুসময়ের দুইশো টাকার কাজ দেয়। কে কাকে দু:সময়ে সাহায্য করে? একটি সিস্টেমে ফেলে এই ব্যাংকের মাধ্যমে ঋণ নিয়ে সমাজে যদি পরিবর্তন আসে তবে সেই উন্নয়ন আমাদের সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে বলে মনে করি।



এই প্রতিবেদন টি 1317 বার পঠিত.