পারিবারিক কবরাস্থনে দাফন জিন্নাতুন নেছা

জিন্নাতুন নেছাsat dead

সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় সিক্ত হয়ে পারিবারিক কবরাস্থনে দাফন করা হয়েছে মাষ্টার জিন্নাতুন নেছার। শুক্রুবার সকাল ১০টায় পাটকেলঘাটার খলিষখালী ইউনিয়নের মঙ্গলানন্দকাটী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে  এ জানাজা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। নামাজের ইমামতি করেন স্থানীয় মসজিদের ইমাম মাওলানা আতিয়ার রহমান।
মরহুম  জিন্নাতুন নেছা সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা,দলুয়া কলেজ ও খলিষখালি ইউনিয়ন পুলিশিং কমিটির সভাপতি আলহাজ ¡মাষ্টার রেজাউল করিমের স্ত্রীর।  গত ১০ দিন পূর্বে তিনি চিকিৎসার জন্য ঢাকার একটি হাসপাতালে ভর্তি হন। পরে তার শরীরে অস্ত্রপাচার করেন কর্তব্যরত ডাক্তার। অস্ত্রপাচারের পর তার জ্ঞান না ফেরায় ডাক্তার তাকে মৃত্য ঘোষণা করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়ে ছিল ৬৫ বছর। তিনি ছিলেন নারী জাগরণের এক জন পথিকৃত। ধর্মীয় কুসংস্কারের উর্ধ্বে উঠে তিনি নারী সমাজকে জাগ্রত করতেন। তিনি মুসলমানদের সর্বশ্রেষ্ঠ মানব মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সঃ) এর রওজামোবারক জিয়ারত করে হজ্জ পালন করেন। এ মহিশিয়ান নারী ১৯৫১ সালে একটি সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম লাভ করেন। যে সময় নারীদের স্কুলে পাঠানো প্রায় নিষেধ ছিল সেই সময়ে তিনি বিএ পাশ করেন। ১৯৭২ সালে তিনি খলিষখালি বালিকা বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা শুরু করেন। পরে ১৯৮৬ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত তিনি খলিষখালি মাগুরা কলেজিয়েট স্কলে শিক্ষকতা করতেন। শিক্ষকতা জীবনে জ্ঞানের আলো ছড়ানোর জন্য তিনি  শিক্ষাথিদের মাঝে স্মরণীয় হয়ে আছেন। তিনি দুই ছেলে,এক কন্যা সন্তান সহ অসংখ্য গুণগাহী রেখে গেছেন। তার বড় মেয়ে শারমিন নারগিস (শিমু)বাংলাদেশ ব্যাংকের বিআইবিএম বিভাগে উচ্ছপদস্থ পদে কর্মরত আছেন এবং ছোট ছেলে মঞ্জুরুল কবির (সবুজ) একটি চাইনা কোম্পানিতে কর্মরত আছেন। মরহুমের মৃত্যুতে এলাকাতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। মরহুমকে দেখতে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ ছুটে আছেন।  মরহুমের জানাজা নামাজে,উপস্থিত ছিলেন,উপজেলা আ’লীগের সভাপতি নুরুল ইসলাম,উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান,ইখতিয়ার হোসেন,খলিলনগর ইউপি চেয়ারম্যান,প্রনবঘোষ বাবলু,প্রবিন সাংবাদিক এড.শহিদুল্লাহ,ক্রাইমবার্তা ডটকমের সম্পাদক আবু সাইদ বিশ্বাস,উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক, সরদার জাকির,যুগ্ন আহবায়ক হিল্ল,খলিষখালি ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি সরদার নাছির উদ্দীন,এড.সবুজ,বালিয়াদহা কলেজিয়েট স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক আব্দুল আজাদ,মাওলানা আহসান,। মরহুমকে দেখতে আসেন মাওলানা মাসুম বিল্লাহ,অধ্যক্ষ রাশেদুল ইসলাম,আতাউর রহমান সহ অনেকে। জানাজা নামাজ শেষে মরহুমকে তার পারিবারিক মুসলিম ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী তার পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।



এই প্রতিবেদন টি 252 বার পঠিত.