সব বিভাগেই হার মানছেন কোহলি

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ফাইনালে পাকিস্তানের কাছে বিপর্যস্ত হওয়ার পরে বিরাট কোহালি স্বীকার করে নিচ্ছেন, রবিবার তাঁরা সব বিভাগেই পরাস্ত হয়েছেন প্রতিপক্ষের কাছে। ম্যাচের পরে টিভি-তে ভারত অধিনায়ক বলেন, ‘‘আমরা আজ সব বিভাগেই হেরে গিয়েছি পাকিস্তানের কাছে। এই জন্যই কোনও টিমকে হালকা ভাবে নেওয়ার প্রশ্ন থাকে না।’’ কোহালি বলছেন, ‘‘পাকিস্তানকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। ওদের কাছে একটা চমকপ্রদ টুর্নামেন্ট গেল এটা। যে ভাবে ওরা ঘুরে দাঁড়াল, তাতে বোঝা যাচ্ছে ওদের ক্রিকেটে কত প্রতিভা আছে।’’

প্রথম ম্যাচে ভারতের কাছে হারের পরে পাকিস্তানের এই পুনরুত্থানের পিছনে রয়েছে তাঁদের দুই তরুণ ক্রিকেটার। ওপেনার ফখর জমান এবং পেসার হাসান আলি। ফাইনালে ম্যাচের সেরা হলেন ফখর আর টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি হওয়ার পাশাপাশি হাসান হলেন চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেরা ক্রিকেটারও। নিজেদের পারফরম্যান্স নিয়ে বিরাট বলছেন, ‘‘আমরা আর কয়েকটা উইকেট তোলার বল করতে পারলে ভাল হতো। আমরা চেষ্টা করেছিলাম, কিন্তু হল না। বল হাতেও ওরা দারুণ আগ্রাসী ছিল।’’ স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন ওঠে, বুমরা-র নো বল নিয়ে আপনি কী বলবেন? যে বলে ফখর ৩ রানে আউট হয়ে জীবন পান। বিরাট বলছেন, ‘‘মাঝে মাঝে ছোট ছোট ভুল বিরাট হয়ে যায়। তবে এটা মনে রাখবেন, আমরা একটা ক্রিকেট ম্যাচ হেরেছি। আমাদের এগিয়ে যেতে হবে।’’

পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আমেদ বলে গেলেন, ‘‘গ্রুপে ভারতের কাছে হেরে যাওয়ার পরে আমি ছেলেদের বলেছিলাম, টুর্নামেন্ট কিন্তু শেষ হয়ে যায়নি। আমাদের প্রতিটা ম্যাচ এ বার নকআউট ধরে খেলতে হবে। তার পর থেকে আমরা সব ম্যাচে ভাল খেলেছি। ফাইনালেও দারুণ খেলে চ্যাম্পিয়ন হলাম।’’ ফখরকে নিয়ে তাঁর অধিনায়ক বলছেন, ‘‘ফখর দুর্দান্ত প্লেয়ার। এটা ওর প্রথম আইসিসি টুর্নামেন্ট ছিল। আর সেখানেই ও এত ভাল খেলে দিল। পাকিস্তান ক্রিকেটের সম্পদ হয়ে উঠবে ও।’’ বোলারদের কথাও বলেছেন তিনি। ‘‘আমির, জুনেইদ, হাসান, হাফিজ— সবাই খুব ভাল বল করে গেল। আমাদের তরুণ টিম। এই জয়ের পিছনে সবার কৃতিত্ব আছে,’’ বলেন সরফরাজ।অভিশপ্ত হয়ে রইল বুমরার নো-বলঃ শারজায় শেষ বলে ছক্কা খাওয়া চেতন শর্মার জমে থাকা দুঃখ-যন্ত্রণা ভাগ করার জন্য এত দিনে কারও একটা আবির্ভাব ঘটল।
ওভালের যশপ্রীত বুমরা!  চেতনের বলটা ছিল ফুলটস। পাকিস্তানের জিততে দরকার ছিল চার। কোমরের উচ্চতায় আসা বল উড়িয়ে দেন মিয়াঁদাদ। আর ওভালে বুমরা এবং ভারতের অভিশপ্ত ডেলিভারি হয়ে থাকল একটি ‘নো বল’।
ওভালে অবশ্য পাকিস্তান রান তাড়া করছিল না, টস জিতে তাদের প্রথমে ব্যাট করতে পাঠান কোহালি। শুরুতেই সাফল্য এল। বুমরার বলে ধোনির হাতে খোঁচা দিয়ে ফিরে যাচ্ছেন ফখর জমান।
কিন্তু জায়ান্ট স্ক্রিন দেখাল বুমরা ‘নো বল’ করেছেন। জমান তখন ৭ বলে ৩। পাকিস্তান ৩ ওভারে ৭-১ হয়ে যায়। সেই যে বাঁচলেন বাঁ-হাতি ওপেনার, থামলেন ১০৬ বলে ১১৪ রানের দুর্ধর্ষ ইনিংস খেলে। প্রথম আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি। আর সেটা এল কি না ফাইনালে ভারত-পাক ম্যাচে। কী অসাধারণ এক আবির্ভাব! পাক নৌসেনায় সেপাইয়ের কাজ করতেন জমান। সেখান থেকে ক্রিকেটার হওয়ার স্বপ্ন এবং কয়েক বছরের মধ্যে বিশ্বমঞ্চে পাকিস্তানের নবজাগরণ ঘটানো জয়ের নায়ক। ১৮০ রানের ব্যবধানে ফাইনাল জিতল এমন একটা দল, যাদের কেউ ফেভারিট ধরেনি। বরং ভারতের কাছেই প্রথম ম্যাচে দুরমুশ হওয়ার নামকরণ হয়েছিল, ‘প্যানিকস্তান’।
রবিবারের পরে কানে এল ‘নো বলের’ নাম পাল্টে নাকি রাখা হবে ‘বুমরা বল’! ক্লাইভ লয়েড পর্যন্ত লাঞ্চের সময় বলেন, বুমরার ‘নো বল’টাই টার্নিং পয়েন্ট হয়ে থাকল। নিশ্চয়ই বুমরা একা ম্যাচ হারাননি। এমন মহাতারকা ব্যাটিংও তো ফাইনালে টেক-অফই করল না। টস জিতে ফিল্ডিং নেওয়া নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। ২০০৩ দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপ ফাইনালে টস জিতেও অস্ট্রেলিয়াকে ব্যাট করতে পাঠান সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। সেখানেই ম্যাচ শেষ হয়ে যায়। টসের হিসেব ওলটপালট করে দিল বিরাটের ভাগ্যও। তবু টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে থেকে যাবে বুমরার ‘নো বল’টাই। যেমন ছিল ওয়াংখেড়েতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল। ওয়েস্ট ইন্ডিজের লেন্ডল সিমন্সকে সে দিন শুরুতেই আউট করেছিলেন অশ্বিন। এ দিনের মতোই রিপ্লে দেখিয়েছিল, ‘নো বল’ হয়েছে। সে দিন সিমন্স ম্যাচ নিয়ে চলে যান। এ দিন নিয়ে গেলেন জমান। ১৯৮৬-র শারজায় সেই শেষ বলের ছক্কা নিয়ে আজও কথা শুনতে হয় চেতন শর্মাকে। ১৮ জুন, ২০১৭-ও তাড়া করে বেড়াবে বুমরাকে।

নৌসেনার সেপাই থেকে পাকিস্তান ক্রিকেটের নায়কঃ ওভালে লাঞ্চ হতেই ফোনে পাওয়া গেল তাঁকে। আজাব খান। ততক্ষণে পাকিস্তানে তাঁকে নিয়ে হইচই পড়ে গিয়েছে। একের পর এক মিডিয়ার ফোন আসছে। টিভি-তে ইন্টারভিউয়ের জন্য অনুরোধ আসছে। পরিচয় করিয়ে দেওয়া যাক। আজাব খান হচ্ছেন ফখর জমানের মেন্টর। ভারতীয় পেসার যশপ্রীত বুমরার ‘নো বল’ হয়তো ফখরের জীবনের টার্নিং পয়েন্ট হয়ে থাকবে রবিবারের পর। কিন্তু তারও অনেক আগে আজাবের সঙ্গে দেখা হওয়াটা ছিল চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ফাইনালের নায়কের জীবনের টার্নিং পয়েন্ট। সেই সময় পাক নৌসেনায় সেপাইয়ের কাজ করতেন ফখর। গরিবের সংসারে ক্রিকেট খেলা দূরে থাক, দৈনন্দিন জীবনযাপনই হয়ে উঠেছিল কঠিন। তাই বাধ্য হয়ে সেপাই হিসেবে যোগ দিতে হয়।

লাঞ্চের সময় ফখর যখন ম্যাচ জেতার মতো স্কোরে পৌঁছে দিয়েছেন তাঁর দলকে, আজাব পাকিস্তান থেকে ফোনে বলছিলেন, ‘‘নৌসেনার কোচ ছিল নাজিম খান। ও-ই প্রথম আমার কাছে নিয়ে এসেছিল ফখরকে। আমি প্রথম ওকে অনূর্ধ্ব উনিশ ডিস্ট্রিক্ট ম্যাচে খেলাই। সেই ম্যাচে ও বেশ ভাল খেলেছিল। সেটাই ছিল শুরু।’’ প্রথম যখন নেটে ব্যাট করতে দেখেছিলেন ফখরকে, কী মনে হয়েছিল? আজাব বললেন, ‘‘আমি খুবই প্রভাবিত হয়ে গিয়েছিলাম। একটুও অতিরঞ্জিত করে বলছি না। আমরা দেখেই বুঝেছিলাম, এক দিন এই ছেলে পাকিস্তানের হয়ে খেলবে।’’ ফখর তাঁদের কাউকে হতাশ করেননি। যদিও তাঁকে পরিশ্রম করে যেতে হয়েছে গন্তব্যে পৌঁছনোর জন্য। নির্বাচকদের চোখে পড়তে সময় লেগেছে। যে পাকিস্তান সুপার লিগ টি-টোয়েন্টি খেলে তিনি নজরে পড়লেন, সেই টুর্নামেন্টেই প্রথম বার তাঁকে কেউ নিলামে কেনেনি।

খাইবার অঞ্চলে মারদান নামে একটি শহর থেকে এসেছেন ফখর। যেখান থেকে পাকিস্তানের মহাতারকা ইউনিস খানও এসেছেন। তবে ফখর একাধিক শহরে ঘুরেছেন ক্রিকেটার হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে। প্রথমে নৌসেনার সেপাইয়ের কাজ থেকে তাঁকে ক্রিকেটে তুলে আনেন আজাব। তার পর  নিয়মিত হওয়ার জন্য তাঁকে লাহৌর থেকে করাচি দৌড়ে বেড়াতে হয়েছে। কিন্তু তাঁর আসল উত্থান ঘটে আজাব তাঁকে করাচির পাকিস্তান ক্রিকেট ক্লাবে নিয়ে আসার পরে। এই ক্লাবটি চালান আজাব-ই। এখান থেকে উঠেছেন পাকিস্তানের বর্তমান অধিনায়ক সরফরাজ আমেদ। নতুন পেস বোলার রুমন রইস এই ক্লাবের। ফখরের সবচেয়ে বড় সুবিধে হয়, সরফরাজ তাঁকে শুরু থেকে চেনায়। ‘‘সরফরাজ অধিনায়ক হওয়ার পরে ফখরকে নিয়ে ভাবতে শুরু করে। কারণ, আমাদের ক্লাবে খেলার সময়েই ও দেখে নিয়েছিল, ফখরের মধ্যে ম্যাচউইনার হওয়ার ক্ষমতা রয়েছে।’’ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে তাঁকে ওপেনার হিসেবে নামানোর সিদ্ধান্তও সরফরাজের। পাকিস্তান অধিনায়ক মিকি আর্থারের নয়। গোটা ক্রিকেট বিশ্বে এখন বিস্ময় তৈরি হয়েছে যে, এমন প্রতিভাবান ব্যাটসম্যান থাকা সত্ত্বেও পাকিস্তান তাঁকে খেলাচ্ছিল না কেন? শেষ পর্যন্ত ফখর শুধু খেললেনই না, শুধু পাকিস্তানকে জেতালেনই না, জীবনযুদ্ধে জেতার উদাহরণও রেখে গেলেন লন্ডনে।

যদিও তাঁর ক্রিকেটীয় গুণাবলীর ময়নাতদন্ত করতে বসে নানা রকম মতামত পাওয়া যাচ্ছে। সরফরাজ এবং পাকিস্তান অবশ্যই তাঁকে নিয়ে উচ্ছ্বসিত যে, তাঁরা নতুন এক তারকা পেলেন। আবার কেউ কেউ মনে করছেন, ব্যাট হাতে বিপজ্জনক ভাবে বেঁচে থাকেন তিনি। এ দিন যেমন একের পর এক পুল-হুক মেরে গেলেন কিন্তু কোনওটাই খুব আত্মবিশ্বাস নিয়ে মারতে দেখা গেল না। এ দিন ভাগ্য সঙ্গে ছিল বলেই হয়তো রক্ষা পেয়ে গেলেন। কোহালি যেমন বলে গেলেন, ‘‘দারুণ ব্যাট করেছে। কিন্তু একটা ভঙ্গিতে খেলেছে এবং আজকের দিনে হয়তো সেটা খেটে গিয়েছে।’’

সুত্র: আনন্দবাজার।

 



এই প্রতিবেদন টি 105 বার পঠিত.