সচিবালয়ে মোবাইল থেরাপি কার্যক্রম

সচিবালয়ে মোবাইল থেরাপি কার্যক্রম  ঃজান্নাতুল ফেরদৌস

আজ সকাল ১০ টায় বাংলাদেশ সচিবালয়ের ক্লিনিক ভবনের সামনে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে সচিবালয়ে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীগণকে সপ্তাহে ২ দিন (রবিবার ও বুধবার) থেরাপি সেবা প্রদানের লক্ষ্যে “মোবাইল থেরাপি সেবা কার্যক্রম” শুভ উদ্বোধন করা হয়। অনুষ্ঠানটি উদ্বোধন করেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মোজাম্মেল হক খান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য অধিদফতরের প্রধান তথ্য কর্মকর্তা জনাব কামরুন নাহার ও সমাজসেবা অধিদফতরের মহাপরিচালক, গাজী মোহাম্মদ নূরুল কবীর। অনুষ্ঠানটি সভাপতিত্ব করেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ জিল্লার রহমান। সভায় ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামরুন নাহার খানম।
সভায় প্রধান অতিথি, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মোজাম্মেল হক খান বলেন- মোবাইল থেরাপি সেবা কার্যক্রম একটি অত্যান্ত সুচিন্তিত সিদ্ধান্ত। সচিবালয়ে কর্মরত নবীন থেকে শুরু করে পঞ্চাষার্ধ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য এটি আর্শীবাদ স্বরুপ। বর্তমান সরকার নানাবিধ সেবা কার্যক্রম সম্প্রসারণে ব্যাপক কাজ করে যাচ্ছে। এই থেরাপি সেবা কার্যক্রম নিঃসন্দেহে সচিবালয়ে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শারীরিক ও মানসিক শক্তিতে বলিয়ান করবে।
সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব, মোঃ জিল্লার রহমান বলেন- সচিবালয়ে কর্মরত সরকারী চাকুরীজীবিগণকে  প্রতিদিন সকাল ৯ টা থেকে ৫ টা পর্যন্ত অফিস কক্ষে বসে কাজ করতে হয়। সপ্তাহে ৫ দিন অফিস কক্ষে বসে কাজ করার কারণে অনেকেরই চাকুরী শেষে হাটু ও কোমরের ব্যাথাসহ নানাবিধ রোগ ব্যাধি দেখা দেয়। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এই থেরাপি সেবা কার্যক্রম নিঃসন্দেহে সচিবালয়ে কর্মরত চাকুরীজীবীগণের  চিকিৎসা ক্ষেত্রে একটি মাইল ফলক হিসেবে কাজ করবে। এই সেবা কার্যক্রম প্রতিষ্ঠায় তিনি সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি, তথ্য অধিদফতরের প্রধান তথ্য কর্মকর্তা জনাব কামরুন নাহার বলেন- সচিবালয়ে এ থেরাপি সেবা কার্যক্রম এটিই প্রথম। তিনি এই থেরাপি সেবার সুফল সংশ্লিষ্ট সকলের নিকট পৌছে দিতে  যথাযথ ব্যবস্থা নিবেন। তিনি এই সেবা কার্যক্রমটি সপ্তাহে ২ দিনের পরিবর্তে ৫ দিন করার অনুরোধ জানান।
অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন সমাজসেবা অধিদফতরের মহাপরিচালক গাজী মোহাম্মদ নূরুল কবীর ও জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামরুন নাহার খানম।
অনুষ্ঠান শেষে সকাল ১১ টায় ক্লিনিক ভবনের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা মোবাইল থেরাপি ভ্যানে উঠে মোবাইল থেরাপি ভ্যান কার্যক্রম শুভ উদ্বোধন করা হয়।
উল্লেখ্য যে, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের আওতায় পরিচালিত ১০৩টি প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্র এর নিয়ন্ত্রণে ৩২টি মোবাইল রিহ্যাবিলিটেশন থেরাপী ভ্যান এর মাধ্যমে অটিজম স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডার, শারীরিক, মানসিক অসুস্থতাজনিত প্রতিবন্ধিতা, দৃষ্টি, বাক, বুদ্ধি প্রতিবন্ধিতা, শ্রবণ, শ্রবণ-দৃষ্টি প্রতিবন্ধীতা, সেরিব্রাল পালসি, ডাউন সিনড্রোম, বহুমাত্রিক প্রতিবন্ধিতা সম্পন্ন শিশু, ব্যক্তি এবং প্রতিবন্ধিতার ঝুঁকি সম্পন্ন ব্যক্তিকে ফিজিওথেরাপী, অকুপেশনাল থেরাপী, স্পীচ এ্যান্ড ল্যাংগুয়েজ থেরাপী, হিয়ারিং এসেসমেন্ট, ভিজুয়াল এসেসমেন্ট এবং কাউন্সেলিং সেবা প্রদান করা হয়। এছাড়াও বাত, ব্যথা, প্যারালাইসিস, মুখবাঁকা, হাঁটুতে ব্যথা, কোমরে ব্যথার চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয় এবং প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের বিনামূল্যে বিভিন্ন ধরণের সহায়ক উপকরণ প্রদান করা হয়। মোবাইল রিহেবিলিটেশন থেরাপি ভ্যানের মাধ্যমে প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীকে সরকারিভাবে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে থেরাপীউটিক চিকিৎসা সেবা ও সাহায্য প্রদান করা হয়।
মোবাইল রিহ্যাবিলিটেশন থেরাপী ভ্যান এর মাধ্যমে ইতোমধ্যে ৬৪টি জেলার ৪১৭টি উপজেলা এবং ১২০ টি ইউনিয়নে থেরাপী সেবা প্রদান কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। প্রতিদিন গড়ে ৩৫ জন প্রতিটি মোবাইল থেরাপী ভ্যান থেকে সেবা পেয়ে থাকে।



এই প্রতিবেদন টি 300 বার পঠিত.