রাঙ্গামাটিতে আ.লীগের প্রতিনিধি দল

সোমবার রাতে প্রবল বর্ষণের পর মঙ্গলবার ভোরে রাঙ্গামাটি, বান্দরবান ও চট্টগ্রামের পাহাড়ি এলাকায় ব্যাপক ধসের ঘটনা ঘটে। এতে রাঙ্গামাটিতেই শতাধিক প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। এ ছাড়া চট্টগ্রামে ২৭ জন, বান্দরবানে সাত জন এবং খাগড়াছড়িতে এক জনের মৃত্যুর নিশ্চিত তথ্য পাওয়া গেছে। নিহতদের মধ্যে দুই সেনা কর্মকর্তা এবং দুই জন সৈনিক হয়েছেন। ব্যাপক প্রাণহানির ঘটনায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধি দল এখন রাঙ্গামাটিতে। দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে দলটি ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করবে।

বুধবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে হেলিকপ্টারে করে রাঙ্গামাটি পৌঁছে আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দলটি। দুর্ঘটনার দিন সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার পূর্বনির্ধারিত সুইডেন সফরে যান। পথেই তিনি ব্যাপক প্রাণহানির কথা জানতে পারেন এবং ওবায়দুল কাদেরকে নির্দেশ দেন দলের নেতা-কর্মীদেরকে নিয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াতে।

ওবায়দুল কাদের এরই মধ্যে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদেরকে নির্দেশ দিয়েছেন ক্ষতিদের সহায়তায় এগিয়ে আসনে। এর অংশ হিসেবেই এই প্রতিনিধি দলের রাঙ্গামাটি পরিদর্শন বলে জানিয়েছেন নেতারা।

স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতারা জানান, যেসব এলাকায় পাহাড় ধসে পড়েছে, সেগুলোতে পরিদর্শনে যাবেন কেন্দ্রীয় নেতারা। এরপর তারা সরকারকে সুপারিশ তুলে ধরবেন। এখনও উদ্ধার তৎপরতা শেষ হয়নি। বিশেষ করে রাঙ্গামাটির বেদেবেদী, যুব উন্নয়ন এলাকা, রাঙ্গাপানি এলাকায় অনেক বাড়ির ওপর ধসে পড়া মাটি অপসারণ কাজ শেষ হয়নি। এসব এলাকায় অনেকে এখনও চাপা পড়ে আছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

প্রতিটি এলাকাতেই উদ্ধার তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে ফায়ার সার্ভিস। আর উদ্বিগ্ন স্বজনরা আশেপাশে অবস্থান নিয়ে আছেন। এই ঘটনায় গোটা এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তিন পাহাড়ি জেলাতে ১৮টি আশ্রয় কেন্দ্র খুলেছে সরকার। ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলোর বাসিন্দারা সেগুলোতে আশ্রয় নিয়েছেন।



এই প্রতিবেদন টি 187 বার পঠিত.