লিটন নন্দীসহ চারজনের জামিন

সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে গ্রিক দেবীর ভাস্কর্য সরানোর প্রতিবাদে গতকাল ২৬ মে শুক্রবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করে বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীরা। সে সময় তারা মিছিল নিয়ে রাজু ভাস্কর্য থেকে হাইকোর্টের মাজার গেটের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশি বাধার মুখে পড়ে। ব্যারিকেড ভেঙে মিছিল সামনে এগুতে চাইলে পুলিশ জলকামান ও কাঁদানে গ্যাস ব্যবহার করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। পুলিশি বাধার মুখে মাজার গেট পার হতে না পেরে সেখানেই অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন তারা। সে সময় লিটন নন্দী ও আরিফুরসহ চারজনকে আটক করে পুলিশ। এরপর রাতে এ ঘটনায় চারজনের নাম উল্লেখ করে এবং বাকিদের অজ্ঞাতনামা দেখিয়ে শাহবাগ থানায় ১৪০ জনের বিরুদ্ধে অ-জামিনযোগ্য ধারায় মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে ‘সরকারি কাজে বাধা দেওয়া’র অভিযোগ আনা হয়েছে।

২৭ মে শনিবার গ্রেফতার লিটন নন্দীসহ চারজনের আইনজীবীরা জামিনের আবেদন করেন। ওই আবেদনের শুনানি শেষে আজ জামিনের আদেশ দেন আদালত। ২৮ মে রোববার তাদের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন ঢাকা মহানগর হাকিম এ কে এম মাইনউদ্দিন সিদ্দিকী। সুপ্রিম কোর্টের সামনে ভাস্কর্যটি সরানোর প্রতিবাদে বিক্ষোভ করার সময় গ্রেফতার বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দীসহ চারজনের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেছেন আদালত।

জামিন পাওয়া অপর তিনজন হলেন- বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা কলেজ শাখার সভাপতি মোরশেদ আলীম, লালবাগ থানার সাংগঠনিক সম্পাদক আল-আমীন হোসেন জয় ও উদীচীর সম্পাদকমণ্ডলীর নেতা আরিফ নুর।

২৭ মে শনিবার গ্রেফতার চারজনকে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। শুনানি শেষে লিটন নন্দীসহ চারজনকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত।



এই প্রতিবেদন টি 335 বার পঠিত.