‘আল্লাহ মেহেরবান’ ইউটিউব থেকে সরাতে আইনি নোটিশ

জিত্ ও নুসরত ফারিয়ার কোরিওগ্রাফিতে গানটি দর্শকদের পছন্দ হবে বলেই মনে করেছিলেন নির্মাতারা। কিন্তু ফল হল ঠিক উল্টো। জাজ মাল্টিমিডিয়ার ইউটিউব চ্যানেলে গানটি আপলোড হওয়ার পরই বাংলাদেশের বিভিন্ন মহল থেকে প্রতিবাদ আসতে শুরু করেছে। গানটিতে ‘অশ্লীল’ পোশাক পরে আল্লার নাম নিয়ে নাচার হয়েছে বলে অভিযোগ করে রোববার প্রযোজককে আইনি নোটিস পাঠানো হয়েছে। এই নোটিস পাঠিয়েছেন বাংলাদেশের আইনজীবী আজিজুল বাশার। একইসঙ্গে তার প্রতিলিপি পাঠানো হয়েছে বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রকের সচিব, সংস্কৃতি মন্ত্রকের সচিব, চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশনের (বিএফডিসি) সভাপতি ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক, পুলিশের আইজি এবং চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের চেয়ারম্যানকে। ওই নোটিসে বলা হয়েছে, তিন দিনের মধ্যে গানটিকে ইউটিউব থেকে সরিয়ে না নেওয়া হলে আইনি পদক্ষেপ করা হবে। গানটি তাঁর ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করছে বলে অভিযোগ করেছেন আজিজুল।

নোটিশে জানানো হয়েছে, গত ২৭ মে ইউটিউবে ‘আল্লা মেহেরবান’ গানটি খুঁজে পান আজিজুল। তিনি গানটিকে ইসলামি গান মনে করে দেখতে শুরু করেন। কিন্তু পরে তিনি বুঝতে পারেন গানটি ‘বস ২’ ছবির আইটেম সং। পবিত্র রমজানের আগে এ ধরনের গান রিলিজ করে প্রযোজনা সংস্থাটি বাংলাদেশের আপামর জনগোষ্ঠীর ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হেনেছে বলেও নোটিসে উল্লেখ রয়েছে। শুধু আজিজুল অবশ্য নন, গানটির বিরুদ্ধে সরব আরও অনেকেই। সোশ্যাল মিডিয়াতেও গানটির জন্য লাইকের চেয়ে ডিজলাইকের সংখ্যাই বেশি।

এ প্রসঙ্গে জাজ মাল্টিমিডিয়ার প্রধান আবদুল আজিজ বলেন, ‘‘আমরা এখনও কোনও আইনি নোটিস পাইনি। সে কারণেই কোনও মন্তব্য করতে পারব না। আইনি নোটিস হাতে পেলে তার উত্তর দেবেন আমাদের আইনজীবী।’’



এই প্রতিবেদন টি 1112 বার পঠিত.