ছাত্রদলের জেলা পর্যায়ে শিক্ষাগত যোগ্যতা নির্ধারণ করা হচ্ছে

অলিদ তালুকদার
জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কমিটিতে বয়সসীমা নির্ধারণের পাশাপাশি শিক্ষাগত যোগ্যতাকে গুরুত্ব দিয়ে কমিটি করার চিন্তা ভাবনা করছে দলটি। কেন্দ্রীয় ছাত্রদলে বেশিরভাগ শিক্ষিত থাকলেও জেলা-মহানগর পর্যায়ে এ বিষয়টি খুব বেশি গুরুত্ব দেয়া হতোনা। একারণে অতীতে কিছু কিছু জেলা ও মহানগর কমিটিতে অশিক্ষিত এবং অর্ধশিক্ষিতরাও নেতা হয়েছেন। এবার অন্যান্য ছাত্র সংগঠণের সাথে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে সক্রিয়তার পাশাপাশি শিক্ষাগত যোগ্যতার বিষয়টিও নির্ধারণ করা হচ্ছে। ছাত্রদলের নীতিনির্ধারক পর্যায়ের একাধিক সূত্র এমন তথ্য নিশ্চিত করেছে।
সূত্র জানায় সাংগঠনিক কার্যক্রম এবং অান্দোলনের জন্য তরুণদের উপর ভরসা করছেন দলের নীতিনির্ধারকরা। একারণে জেলা – মহানগর পর্যায়ে বয়স্কদের বাদ দিয়ে ২০০০ সালে এসএসসি পাশ করা ছাত্রদের দিয়ে জেলা – মহানগর কমিটি গঠণ করার বিষয়টি চুড়ান্ত করা হয়েছে। এই নিয়মে ইতিমধ্যে ২০ টি কমিটি ঘোষনা করা হয়েছে। প্রক্রিয়াধীন রয়েছে অারো বেশ কয়েকটি কমিটি। তবে এক্ষেত্রে কিছু কিছু জায়গায় ৯৮/৯৯ সালে এসএসসি পাশ করা নেতারাও কমিটিতে জায়গা পেয়েছেন। নবগঠিত ২০ টি কমিটিতেও শিক্ষিতদেরকে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে।
জানা যায়, কিছু কিছু জায়গায় ২০০০ এসএসসি ব্যাচের যোগ্য নেতা না পাওয়ায় ৯৮/৯৯ ব্যাচের অবিবাহিতদেরকে কমিটিতে রাখা হয়েছে। অনেকে বাদ পড়ায় কিছুটা অসন্তোষ থাকলেও সার্বিক বিবেচনায় ভাল হয়েছে বলে মনে করে নেতাকর্মীরা।
অারো সুন্দর কমিটি এবং সুশৃঙ্খল সংগঠণ গড়ে তুলতে এবার শিক্ষাগত যোগ্যতার বিষয়টিও নির্ধারণ করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে জেলা ও মহানগর পর্যায়ে সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য ন্যূনতম শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক পাশ নির্ধারণ করা হচ্ছে। সহসভাপতি থেকে সম্পাদকীয় পদের জন্য ন্যূনতম এইচ এস সি পাশ নির্ধারণ করার সম্ভাবনা রয়েছে। ইতিমধ্যে বিষয়টি নিয়ে অালাপ অালোচনা চলছে। তবে কারো কারো মতে হঠাৎ করে এমন সিদ্বান্ত নিলে কিছু কিছু জেলায় যোগ্য নেতা পাওয়া না যেতে পারে।সেক্ষেত্রে ঐসব জেলায় ৯৮/৯৯ এসএসসি ব্যাচের অবিবাহিতদেরকে গুরুত্ব দেয়া হবে।
দলের নীতিনির্ধারক এবং সাবেক ছাত্রনেতাদের ধারণা এরকম একটি কাইটেরিয়া করা হলে শিক্ষিত ও তরুণরা উৎসাহিত হবে। পাশাপাশি বাদ পড়া নেতাকর্মীরা যুবদল – স্বেচ্ছাসেবকদলে সক্রিয় হলে এ দুটি অঙ্গ সংগঠণ শক্তিশালী হবে।
বর্তমানে একমাত্র ছাত্রদল ব্যতীত অন্য সকল ছাত্র সংগঠণে নিয়মিত ছাত্ররা নেতৃত্ব দিচ্ছে। এই উপলব্ধি থেকেই ছাত্রদলে বয়স এবং শিক্ষাগত যোগ্যতার বিষয়টি নির্ধারণ করা হচ্ছে বলে ছাত্রদল সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক এক নেতা যিনি বর্তমানে ছাত্রদলের অন্যতম নীতিনির্ধারকের ভূমিকা পালন করছেন তার কাছে জানতে চাইলে বিষয়টি স্বীকার করে বলেন,শিক্ষাগত যোগ্যতার বিষয়টি নির্ধারণ করা সময়োপযোগী সিদ্বান্ত। এতে শিক্ষিত ছেলেরা ছাত্রদলের রাজনীতিতে অংশগ্রহণে উৎসাহী হবে। কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের একজন যুগ্ম সম্পাদক বলেন, অামি এ বিষয়টিকে স্বাগত জানাই। এটা অারো অাগে করা উচিত ছিল



এই প্রতিবেদন টি 66171 বার পঠিত.